কিভাবে কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানো যাবে?

বর্তমান সময়ে প্রতিটি সেক্টরে কম্পিউটার ব্যবহার হচ্ছে। কম্পিউটার টাইপিং এর প্রয়োজন পড়ছে প্রতিনিয়তই। সেজন্য কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বৃদ্ধি করা আপনার কাজের বেগকে আরো ত্বরান্বিত করবে। আপনি যদি দ্রুত টাইপিং করতে পারেন তাহলে আপনি কাজও দ্রুত করতে পারবেন।

কিভাবে কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানো যাবে

যে মানুষটা মিনিটে ৬০ থেকে ৭০ টি ওয়ার্ড অথবা তারও বেশি ওয়ার্ড টাইপ করতে পারে। সে কিন্তু কম্পিউটারে কিবোর্ড এর দিকে তাকিয়ে টাইপ করে না। সে কিবোর্ড এর দিকে না তাকিয়ে দুই হাতে দশটি আঙ্গুল দিয়ে টাইপিং করে। কিবোর্ডের দিকে না তাকিয়ে দুই হাতে দশটি আঙ্গুল দিয়ে টাইপিং করলে আপনার টাইপিং স্পিড অনেক গুণ বেড়ে যাবে।

আর তাই আজকের এই আর্টিকেলে কিভাবে টাইপিং স্পিড বাড়ানো যাবে এই নিয়ে কথা বলব।

টাচ টাইপিং কি?

কম্পিউটারের কিবোর্ডের দিকে না তাকিয়ে সবগুলো আঙ্গুল কে সঠিক পজিশনে রেখে টাইপিং করার পদ্ধতি হচ্ছে টাচ টাইপিং।আপনি যদি এটা টাইপিং একবার শিখে ফেলতে পারেন তাহলে আপনি অন্যদের চেয়ে অনেক দ্রুত টাইপ করতে পারবেন। নরমাল টাইপিং এর ক্ষেত্রে আমরা কিবোর্ডের দিকে তাকিয়ে টাইপ করি। কিন্তু টাচ টাইপিং এ আমরা কিবোর্ডের দিকে তাকাই না। যার ফলে আমাদের কাজের গতি অনেক বৃদ্ধি পায়। 

কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানোর উপায় 

এ পর্যায়ে আমরা আলোচনা করব কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানোর কিছু উপায় নিয়ে। যে উপায় গুলো অনুসরণ করলে আপনার কম্পিউটার টাইপিং স্পিড অনেক বেশি বাড়বে।

১। সঠিক পজিশনে বসা

কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানোর জন্য অবশ্যই আপনাকে সঠিক পজিশনে বসতে হবে। আপনার কিবোর্ড বা কম্পিউটার মনিটর স্ক্রিন থেকে একটি নির্দিষ্ট দূরত্বে অবস্থান করতে হবে। এবং আপনাকে অবশ্যই সোজা হয়ে বসতে হবে। 

আপনি যদি সোজা হয়ে না বসেন অথবা শুয়ে শুয়ে টাইপ করেন সেক্ষেত্রে আপনি খুব একটা বেশি স্পিডে টাইপ করতে পারবেন না। তাছাড়া আপনার নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে যেমন কোমরে ব্যথা, ঘাড় ব্যথা ইত্যাদি।এজন্যই কম্পিউটার টাইপিং এর সময় অবশ্যই সঠিক পজিশনে বসবেন।

২। কিবোর্ডের উপর দশটি আঙ্গুল সঠিকভাবে রাখা

একটু আগেই যখন আমরা টাচ টাইপিং নিয়ে বললাম। তখন সেখানে উল্লেখ করা হয়েছিল দশটি আঙ্গুল কে সঠিক পজিশনে রাখার কথা। আপনি আপনার কিবোর্ডের দিকে খেয়াল করলে দেখতে পাবেন F এবং J এই দুইটি আলফাবেটের উপরে একটি বাম্প রয়েছে।এই দুইটি বাটনের উপর আপনার দুই হাতের ইনডেক্স ফিঙ্গার কে রাখতে হবে।  এবং অন্যান্য আঙ্গুল গুলো সঠিক পজিশনে রাখতে হবে।

আঙ্গুলগুলো যখন আপনি সঠিকভাবে কিবোর্ড এর উপর রাখবেন তখন আপনি টাইপিং করতে অনেক সুবিধা পাবেন। আর যেহেতু আপনি আপনার দশটি আঙ্গুল দ্বারা কিবোর্ডের টাইপ করবেন সেহেতু আপনি অনেক দ্রুত টাইপ করতে পারবেন।

৩। টাইপিং এর সময় কিবোর্ড এর দিকে না তাকানো 

টাইপিং করার সময় যদি আপনি কী বোর্ডের দিকে তাকান তাহলে আপনি ভালোভাবে টাইপিং করতে পারবেন না। টাইপিং করার সময় অবশ্যই আপনাকে স্ক্রিনের দিকে তাকাতে হবে। স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে টাইপ করলে আপনার টাইপিং অনেক দ্রুত হবে।

৪। টাচ টাইপিং সফটওয়্যার বা গেইম খেলা

অনলাইনে টাচ টাইপিং এর জন্য অনেক সফটওয়্যার বা গেম রয়েছে। যেগুলো ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনি টাচ টাইপিং শিখতে পারবেন। এবং আপনার টাইপিং স্পিড বৃদ্ধি করতে পারবেন। টাচ টাইপিং শেখার জন্য এটি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।নিচে এমন কিছু ওয়েবসাইট দেওয়া হলঃ

  • Typing Club
  • Rata Type
  • The Typing Cat
  • Typing.com
  • Typing Study

ওয়েবসাইট গুলোতে ভিজিট করে একটি একাউন্ট খুলে নিতে হবে। একাউন্ট খোলার পর এখানে লেসন্সগুলো আপনাকে ভালোমতো কমপ্লিট করতে হবে। এই ওয়েবসাইট গুলোর মাধ্যমে আপনি খুব দ্রুত টাচ টাইপিং শিখে ফেলতে পারবেন।

৫। অনুশীলন

কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানোর জন্য সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে অনুশীলন করা। মাসল মেমরি বলে একটা কথা আছে। আপনি যত বেশি অনুশীলন করবেন তত বেশি আপনার মাসল মেমোরি বিল্ড হবে। একবার আপনার মাসেল মেমোরি বিল্ড হয়ে গেলে আপনি খুব দ্রুত টাইপিং করতে পারবেন। অনুশীলনের জন্য উপরে ওয়েবসাইট গুলো ব্যবহার করতে পারেন। সেই ওয়েবসাইটগুলোর মাধ্যমে আপনার ভালো অনুশীলন হবে।

টাচ টাইপিং শিখতে কতদিন লাগতে পারে?

আপনার মনে নিশ্চয়ই এই প্রশ্নটি এসেছে যে টাচ টাইপিং শিখতে আপনার কতদিন লাগতে পারে? সোজাসুজি যদি উত্তর দিই তাহলে আপনি যদি প্রতিদিন ভালোভাবে প্র্যাকটিস করে থাকেন। তাহলে এটি আপনি এক সপ্তাহের মধ্যেই শিখে ফেলতে পারবেন।আপনি যখন প্রথম প্রথম টাচ টাইপিং শিখবেন তখন আপনি টাচ টাইপিং এর মাধ্যমে খুব দ্রুত টাইপিং করতে পারবেন না। তখন আপনার মনে হবে যে টাচ টাইপিং এর চেয়ে নরমাল টাইপিং এই আপনি বেশি দ্রুত টাইপ করতে পারতেন।

কিন্তু আপনি যখন টাচ টাইপিং এ মোটামুটি এক্সপার্ট হয়ে উঠবেন তখন দেখবেন আপনার টাইপিং স্পিড অনেক বেশি বৃদ্ধি পাবে। নরমাল টাইপিং এ আগে আপনি যেখানে মিনিটে ৩০ টি ওয়ার্ড টাইপ করতেন। টাচ টাইপিং এ ভালো করার পর আপনি সেখানে মিনিটে ৬০ থেকে ৭০ টি ওয়ার্ড টাইপ করতে পারবেন। এই ওয়ার্ড সংখ্যা আপনার অনুশীলনের উপর ভিত্তি করে আরো বৃদ্ধি পেতে পারে।

শেষ কথা

আশা করি আজকের এই আর্টিকেল সম্পূর্ণ পড়ার পর আপনি বুঝতে পেরেছেন কিভাবে কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানো যাবে। আপনি নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন কম্পিউটার টাইপিং স্পিড বাড়ানোর জন্য মূলত আপনাকে টাচ টাইপিং শিখে বেশি বেশি অনুশীলন করতে হবে। বিশ্বাস করুন আপনি যখন একবার টাচ টাইপিং ভালোভাবে শিখে যাবেন এবং আপনার টাইপিং স্পিড বৃদ্ধি পাবে। তখন আপনি অনেক কাজ খুব দ্রুত শেষ করে ফেলতে পারবেন। আপনার অফিসের অনেক কাজ আপনার জন্য সহজ হয়ে যাবে।

এই আর্টিকেলটি আপনার উপকার করে থাকলে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটের বাকি আর্টিকেল গুলো পড়তে পারেন। টাচ টাইপিং অথবা কম্পিউটার টাইপিং করার বিষয়ে যদি আপনার কোন মন্তব্য থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে আমাদেরকে জানাতে পারেন।

ধন্যবাদ।





Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url